শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন

সরকারি নির্দেশনা :
করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মাস্ক পরুন, নিরাপদ থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন এবং পরিবারকে সুস্থ রাখুন। সৌজন্যে : SylhetLive24.com
আজকের গুরুত্বপূর্ণ যত খবর
জকিগঞ্জে চলছে মাইকিং : ঢুকছে পানি, ভাঙলো ৩ নদীর মোহনার ডাইক মাধবপুরে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীর গালে ছ্যাঁকা! ছাত্রদল নেতা রুবেল ও রাসেলের জামিন লাভ, কারা ফটকে সংবর্ধনা বজ্রপাতে তিন শিশুর মৃত্যু শিশু অধিকার বাস্তবায়ন সম্পর্কিত জবাবদিহিতা বিষয়ক সংলাপ সিলেটে বন্যার্তদের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরণ করলেন জেবুল সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে : ডা. শিপলু জগন্নাথপুরে মসজিদ নির্মাণের নামে সরকারি স্কুলের জমি দখল সিলেট সদর উপজেলা যুবদল থেকে ডালিম বহিস্কার সিলেটে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত বিশ্বনাথে ধর্ষকের হুমকি, অসহায় মা-মেয়ে উপশহরে পানিবন্দি মানুষের পাশে দিদার রুবেল অ্যাড. জামানের মায়ের সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল সিলেটে বন্যার্তদের পাশে মহানগর আ. লীগের সহ সভাপতি আসাদ উদ্দিন সিলেট নগরী রক্ষার্থে ‘শহর রক্ষা বাঁধ’ নির্মাণ প্রয়োজন : মহানগর বিএনপি সিলেটের বানভাসী মানুষদের পর্যাপ্ত ত্রাণ দেওয়ার দাবি বাসদের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী রুবি আলমের উদ্যোগে খাদ্য বিতরণ সিলেটে জামায়াত-শিবিরের ২১ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা ছাত্রদল নেতা রুবেল ও রাসেলের গ্রেফতারে কয়েছ লোদীর নিন্দা দেশের মানুষ সরকারের পাশে, ষড়যন্ত্রকারীদের স্বপ্ন কোনোদিন পূরণ হবে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
হবিগঞ্জে গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষণ

হবিগঞ্জে গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষণ

pic by internet


সিলেট লাইভ ডেস্ক :: হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে বান্ধবীর বিয়েতে এসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ঢাকায় গার্মেন্টে কাজ করা বাগেরহাটের এক গার্মেন্টস কর্মী। পরে ধর্ষণকারীরা ঘটনা ধামাচাপা দিতে ‘আত্মহত্যার চেষ্টা’র নাটক সাজাতে ভিকটিমকে ঘরের সিলিংয়ে ঝুলিয়ে রাখে। এ ঘটনার ভিকটিম থানায় অভিযোগ দিলে জড়িত তিন জনকে আটক করে পুলিশ। এর মাঝে দুই নারী আদালতে ১৬৪ ধারায় জবান বন্দিতে এই ঘটনার বিষয় স্বীকার করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বাগেরহাটের শ্মরণখোলা উপজেলার কোন্তাকাটা গ্রামের ১৯ বছর বয়সী এক নারী গার্মেন্টস কর্মী ঢাকার একটি গার্মেন্টস এ হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের দেলোয়ার হোসেন দিলুর মেয়ে কোহিনুর আক্তারের সাথে চাকরি করত। এক সাথে চাকরি করার সুবাধে তাদের মাঝে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক হয়। সম্প্রতি ভিকটিম কোহিনুরের বিয়ে ঠিক করার সময় তার বাড়িতে বেড়াতে আসে। এ সময় কোহিনুরের আত্মীয় ওই গ্রামের মনা মিয়ার ছেলে শিপন মিয়ার সাথে পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

এদিকে গত ১২ মার্চ ছিল কোহিনুরের বিয়ে। ভিকটিম কোহিনুরের বিয়েতে অংশ নেয়ার জন্য ঢাকা থেকে আসে। ওই দিন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ভিকটিমের সাথে দেখা করে শিপন মিয়া। কোহিনুর তাকে পাশের আশরাফ উদ্দিন এর ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে শিপন মিয়া ও তার আরও ৩ সহযোগী মিলে ভিকটিমকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ শেষে ভিকটিমকে সবাই মিলে ওই ঘরের শিলিংয়ে ঝুলিয়ে রাখে যাতে তার মৃত্যু হলে সবাই বুঝতে পারে সে আত্মহত্যা করেছে। ধর্ষণকারীরা পরে দরজা বন্ধ করে পালিয়ে যায়।

পরে ওই বাড়ীর লোকজন ঘরের দরজা খুলে ভিতরে প্রবেশ করে ভিকটিমকে ঝুলে থাকতে দেখে তাকে নামিয়ে আনে এবং বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা করায়। কিন্তু তারা ধর্ষণের বিষয়টি লুকিয়ে রেখে আত্মহত্যার চেষ্টা করতে গিয়ে অসুস্থ বলে চিকিৎসা করায় এবং মূল ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। এভাবে তিনদিন পর গত ১৫ মার্চ তারা ভিকটিমকে তার বড় বোনের কাছে হস্তান্তর করে।

ভিকটিম বোনকে পেয়ে সাহস ফিরে পায় এবং ঘটনা বোনকে খুলে বলে। পরে ১৫ মার্চ ভিকটিমকে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসা শেষে বৃহস্পতিবার ভিকটিম ও তার বোন লাখাই থানায় গিয়ে ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। ওই দিন রাতেই অভিযোগ পেয়ে লাখাই থানা পুলিশ নোয়াগাঁও গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে আশরাফ উদ্দিন এর স্ত্রী আফিয়া বেগম, মকবুল হোসেন এর ছেলে দেলোয়ার হোসেন দিলু ও দেলোয়ার হোসেন দিলুর স্ত্রী রাবেয়া খাতুনকে গ্রেফতার করে।

শুক্রবার দুপুরে আফিয়া বেগম ও রাবেয়া খাতুনকে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা বেগম এর আদালতে নিয়ে আসলে তারা ১৬৪ ধারায় জবান বন্দিতে ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার কথা স্বীকার করে। একই আদালত শুক্রবার বিকেলে ভিকটিমের ২২ ধারায় জবান বন্দি রেকর্ড করে।

লাখাই থানার ওসি তদন্ত মহিউদ্দিন জানান, গার্মেন্টকর্মীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে শিপন মিয়া ও তার তিন সহযোগী মিলে তাকে ধর্ষণ করে ঘরের শিলিংয়ে ঝুলিয়ে রাখে। তবে ভিকটিম এর মৃত্যু না হওয়ায় প্রকৃত রহস্য উদঘাটন সম্ভব হয়েছে। যারা এই ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মাঝে দুইজন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবান বন্দি দিয়ে ধামাচাপা দেয়ার কথা স্বীকার করেছে। আমরা মূল আসামিদেরকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছি।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web-NEST- BD
ThemesBazar-Jowfhowo