বুধবার, ০৬ Jul ২০২২, ১১:১০ অপরাহ্ন

সিলেটে বিয়ের কাবিন চাওয়ায় ঘরছাড়া এক গৃহবধূ

সিলেটে বিয়ের কাবিন চাওয়ায় ঘরছাড়া এক গৃহবধূ

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ


সিলেট লাইভ ডেস্ক

সিলেট নগরীর শাহী ঈদগাহর এলাকার এক গৃহবধূ বিয়ের কাবিন চেয়ে বিপদে পড়েছেন। গৃহবধূ সঞ্চিত টাকা আত্মসাত ও যৌতুক দাবি করে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে। তিনি এখন সন্তানদের নিয়ে ঘরছাড়া। নির্যাতিত গৃহবধূ আয়েশা আফছানা। স্বামী রাজন আহমদ। নিরুপায় হয়ে নির্যাতিত গৃহবধূ এখন স্বামী বিরুদ্ধে দেবর ও শ্বশুরের কাছে বিচারপ্রার্থী হয়েও কোনো ফল পান নি। বরং উল্টো সাংবাদিক পরিচয়দানকারী প্রতারক দেবর বাড়াবাড়ি করলে তাকে ধর্ষণ ও সন্তানদের হত্যার হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন। এ কারণে ভয়ে তিনি সন্তানদের নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। গৃহবধূ আয়েশা আফছানা এ ঘটনায় নিজের এবং সন্তানদের নিরাপত্তা চেয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি জিডি করেছেন। জিডি নং-২৬৭২।

জিডিতে আয়েশা আফছানা উল্লেখ করেন, শাহপরান (রহ.) থানা এলাকার বালুচরের আওলাদ আলীর ছেলে রাজন আহমদ তিন বছর আগে মোল্লা ডেকে তাকে বিয়ে করেন। এ সময় অসচ্ছলতার কারণে কয়েকদিন পর কাবিন করার আশ্বাস দেন রাজন। বিয়ের পর উভয়ে সংসার শুরু করলেও কাবিন করার বিষয় সব সময় এড়িয়ে যান রাজন। বার বার সময়ক্ষেপন করতে থাকেন। বিয়ের পর স্বামী আওলাদ আলী উশৃঙ্খল চলাফেরা শুরু করেন। আফসানার পিতার পেনশনের টাকা এবং হাতে পুতির ব্যাগ তৈরির টাকা দিয়ে সংসার চালিয়ে যাচ্ছিলেন আফসানা। এর মধ্যেই বিভিন্ন কৌশলে টাকা হাতিয়ে নিতে শুরু করেন রাজন। টাকা না দিলে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকেন। বার বার নির্যাতিত হওয়ায় স্বামীর বিরুদ্ধে বিচারপ্রার্থী হন শ্বশুর আওলাদ আলী ও দেবর মোহন আহমদের কাছে। কিন্তু এতে উল্টো বিপদ বাড়ে আফছানার।

মানবাধিকার সাংবাদিক, টিলা সাংবাদিক, র‌্যাব পুলিশের সোর্সসহ বিভিন্ন পরিচয়ে আফছানাকে হয়রানি ও হুমকি দিতে থাকে দেবর মোহন আহমদ।

সর্বশেষ গত ১২ আগস্ট কাবিন চাওয়ায় স্বামী রাজন আহমদ গৃহবধূ আয়েশা আফছানাকে মারধোর করে ঘর থেকে বের করে দিয়ে তালা লাগিয়ে দেয়। এ সময় গুরুতর জখমপ্রাপ্ত হন আফছানা। একটু সুস্থ হয়ে আফছানা বালুচরে রাজনের বাসায় গেলে কাবিন প্রদানের আশ্বাস দিয়ে তারা সময়ক্ষেপন করতে থাকে। এক পর্যায়ে কথিত সাংবাদিক মোহন আহমদ আফসানার বাসায় গিয়ে অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে সাথে নিয়ে ভাবী আফছানাকে বেশি বাড়াবাড়ি না করার জন্য বলে। অন্যথায় ধর্ষণ এবং সন্তানসহ আফছানাকে হত্যা করার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় সন্তানদের নিয়ে আত্মগোপন করেও নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন।

এ ব্যাপারে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি এস এম আবু ফরহাদ বলেন, জিডি তদন্ত শেষে সত্যতা পেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo