বুধবার, ০৬ Jul ২০২২, ১২:২৫ অপরাহ্ন

সিলেটে নগদ-এ উপবৃত্তির টাকা তুলতে অভিভাবকদের ভোগান্তি

সিলেটে নগদ-এ উপবৃত্তির টাকা তুলতে অভিভাবকদের ভোগান্তি

sylhetlive24.com


সিলেট লাইভ ডেস্ক

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা নগদ একাউন্টে তুলতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়ছেন সিলেটের অভিভাবকমহল। গত কয়েকদিন ধরে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সিলেট হেড পোস্ট অফিসের সামনে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

সিলেট হেড পোস্ট অফিসের নগদ বুথে এক কম্পিউটার ও একজন লোকবল কোনোভাবেই হাজারো ভোক্তভোগী অভিভাবকের সমস্যার সমাধান করতে পারছেন না। ফলে ভুক্তভোগীরা ৪/৫ ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়েও একদিনে সমস্যার সমাধান করতে পারছেন না।

সিলেট হেড পোস্ট অফিস কর্র্তৃপক্ষ জানান, টেকনিক্যাল সমস্যা সমাধানের জন্য সিলেট বিভাগের মধ্যে সিলেট হেড পোস্ট অফিসে একটি বুথ খুলেছে নগদ। এখানে একটি কম্পিউটার এবং একজন লোক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এবার উপবৃত্তির টাকা পাঠানোর সময় নগদ সিলেটের অধিকাংশ অভিভাবকের ফোনে পিন নাম্বার ছাড়াই টাকা উত্তোলনের এসএমএস দিয়েছে। ফলে পিন নাম্বার জানতে আসা মানুষদের একটি কম্পিউটার দিয়ে একজন লোককে সামাল দিতে বেগ পেতে হচ্ছে।

সোমবার বিকেলে ৩টার দিকে সিলেট হেড পোস্ট অফিসে গিয়ে দেখা যায়, গেইট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বাইরে রাস্তায় শতশত অভিভাবক ও শিক্ষার্থী বৃষ্টির মধ্যে দাঁড়িয়ে আছেন। টোকেন দিয়ে ২০ জনকে ভেতরে নেওয়া হচ্ছে।

উপবৃত্তি নেওয়া ছেলেকে সাথে নিয়ে নগরীর রায়নগর থেকে আসা শেফালী বেগম জানান, তিনি বৃহস্পতিবার, রোববার এবং সোমবার এই তিনদিন এসে তাদের সাথে দেখা করার সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু তারা বলেছে তার পিন নাম্বার ভুল। কিন্তু এই পিন নাম্বারে তিনি এর আগে টাকা তুলেছেন।

দশমী নামে শাহী ঈদগাহের একজন অভিভাবক জানান, তার মোবাইলে নগদ যে এসএমএস দিয়েছে তাতে পিনকোড দেয়নি। তিনি রোববার সারাদিন দাঁড়িয়ে কোনো সুযোগ পাননি। সোমবার সকাল থেকে দাঁড়িয়ে বিকেলে সুযোগ পেয়ে তাদের সাথে দেখা করেছেন। তারা সমস্যা সমাধান করে দিতে পারেননি। তাদের সাথে বেশি কথাই বলা যায়না।

ভোগান্তির শিকার অনেক অভিভাবক অভিযোগ করেন, শিক্ষার্থীদের নগদের পিন নম্বারে কাজ না করার কারণে স্কুল শিক্ষকরা তাদেরকে পোস্ট অফিসে ‘নগদ’ শাখায় যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন। হাজারও অভিভাবক পোস্ট অফিসে নগদ শাখায় দিনভর দাঁড়িয়ে থেকেও পিন নাম্বারটি ঠিক করতে পারছেন না ।

গত কয়েক বছর ধরে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস শিওর ক্যাশের মাধ্যমে উপবৃত্তির টাকা বিতরণ করত সরকার। তাতে প্রতি হাজার টাকার উপবৃত্তি বিতরণে সাড়ে ২১ টাকা সার্ভিস চার্জ এবং ক্যাশ-আউট চার্জ লাগত।

শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল দক্ষতা বাড়াতে এবং উপবৃত্তির টাকা উত্তোলনে ভোগান্তি দূর করতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় দেড় কোটি শিক্ষার্থীর ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন সেবা নগদে উপবৃত্তির টাকা প্রদানের উদ্যোগ নেয় সরকার।

গত বছর ১৩ ডিসেম্বর সচিবালয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে উপবৃত্তি বিতরণের লক্ষ্যে প্রাথমিক অধিদপ্তর ও নগদের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চলতি বছরের শুরু থেকে নগদ মোবাইলে টাকা পাঠানো শুরু করে। নগদে মূল টাকার সঙ্গে ক্যাশ-আউটের খরচ পেয়ে যাওয়ায় সুবিধাভোগীদেরও বাড়তি কোনো অর্থ খরচ করতে হয় না। সহজেই বাসার পাশের এজেন্টদের কাছ থেকে টাকা তুলতে পারবেন। কিন্তু প্রতি কিস্তির টাকা তুলতে নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে অভিভাবকদের।

সিলেট হেড পোস্ট অফিসের সহকারি পোষ্ট মাস্টার একে এম কামরুজ্জামান জানান, নগদ থেকে এসএমএস পাঠানোর সময় অনেককে পিন নাম্বার দেওয়া হয়নি। তাই, এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া, নগদের যে বুথ করা হয়েছে, সেখানে মাত্র একজন জনবল। তাই, একজনের পক্ষে এত মানুষকে সার্ভিস দিতে সময় লাগছে। বিষয়টি নিয়ে নগদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা হয়েছে। এই সমস্যার দ্রুত সমাধান হয়ে যাবে।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo