রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০২ অপরাহ্ন

সরকারি নির্দেশনা :
করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মাস্ক পরুন, নিরাপদ থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন এবং পরিবারকে সুস্থ রাখুন। সৌজন্যে : SylhetLive24.com
আজকের গুরুত্বপূর্ণ যত খবর
সিলেটে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান গোলাপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনা, দাদা-নাতি নিহত রোববার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সুনামগঞ্জ-ঢাকা বাস চলাচল বন্ধ সিলেটে বিদ্যুৎ বিভ্রাট : তীব্র গরমে দুর্ভোগে নগরীর কয়েক হাজার মানুষ সিসিকের ৮৩৯ কোটি টাকার বাজেট পেশ আশায় বুক বাঁধছেন হাফিজুল, পাশে দাঁড়াচ্ছেন হৃদয়বানরা শনিবার সিলেটের যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ থাকবে না পুলিশ এসল্ট মামলায় ছাত্রনেতা সুহেল কারাগারে সিলেটে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিক দিপনকে হুমকি বালুচরে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা, আসামীরা অধরা সিলেটে ৮ ভূয়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা সিলেটে আবাসিক হোটেলে ফুর্তি, ধরা পড়লেন ১০ নারী-পুরুষ টিলাগাঁওয়ে পুলিশের অভিযান : ৪ জুয়াড়ি আটক ৭ দিনের মধ্যে অনিবন্ধিত সব অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ সিলেটে বিদ্যালয়ের মাঠে গ্রাসরুটস’র মেলা, বিপাকে কর্তৃপক্ষ জাফলংয়ে চলছে বালু লুটের মহোৎসব : নেপথ্যে জামাই সুমন চক্র সিলেটে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী মিলাদ গ্রেফতার সিলেট জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সব কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা র‍্যাবের হাতে সেই ধর্ষক মিলাদ আটক ইউএসএ ছাত্রদল নেতা কয়েছকে বিদায় সংবর্ধনা
সাংবাদিক হেলালের বিরুদ্ধে মামলা, নেপথ্যে গোলাপগঞ্জের আহাদ

সাংবাদিক হেলালের বিরুদ্ধে মামলা, নেপথ্যে গোলাপগঞ্জের আহাদ

sylhetlive24.com

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক
অমঙ্গল আশঙ্কায় থানায় জিডি করার পরও পার পেলেন না সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরী। জিডির খবরে রাতেই গোলাপগঞ্জ থানায় তার বিরুদ্ধে তদন্ত ছাড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা নিয়েছে পুলিশ। আর এ মামলার বাদি হয়েছেন সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য হাসিনা বেগম। হেলাল আহমদের অভিযোগ- এ মামলার নেপথ্যে কুশিলব গোলাপগঞ্জের থানার বিতর্কিত সাংবাদিক জামায়াত নেতা আবদুল আহাদ ওরফে নুর মিয়া।

গত বৃহস্পতিবার রাতে গোলাপগঞ্জ থানায় ষাটোর্ধ্ব সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি করে মামলা রেকর্ড করে থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে গোলাপগঞ্জ থানায় জিডি না করতে পেরে সিলেটের কোতোয়ালি থানায় জেলা পরিষদের সদস্য হাসিনা বেগমের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রি করেন তিনি। মিথ্যা মামলাসহ হয়রানির আশঙ্কা করে জিডি করার ১০ ঘন্টা পেরোনোর আগেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা রেকর্ড করা হয়।

গোলাপগঞ্জ থানায় জেলা পরিষদ সদস্য হাসিনা বেগমের দায়ের করার মামলার এজাহারে সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরীকে অসৎ, চরিত্রহীন ও খারাপ প্রকৃতির লোক অভিহিত করে তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগে অতীতে মামলা রয়েছে উল্লেখ করেন। হেলাল আহমদ চৌধুরী নামীয় আইডি থেকে সম্প্রতি জেলা পরিষদ সদস্য হাসিনা বেগমসহ সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে মানহানিকর বক্তব্য প্রচার করছেন। গত ১ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে জেলা পরিষদ সদস্য হাসিনা বেগমকে উদ্দ্যেশ্য করে কটুক্তিকর ও আপত্তিকর বক্তব্য প্রচার করেন। এছাড়া হাসিনা বেগমের নাম বিকৃত করে ‘পার্লার হাসিনা’ উল্লেখ করে প্রচার করেছেন, যা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে আমলযোগ্য অপরাধ হওয়ায় হাসিনা বেগম মামলা করেছেন। মামলা নম্বর-২০(০৫)২১।

আরো পড়ুন : গোলাপগঞ্জে ভুয়া নাম পরিচয়ে ত্রাসের রাজত্ব করছে আহাদ

এদিকে- গত বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরী সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানায় এ ধরনের মামলা রেকর্ডের আশঙ্কা করে সাধারণ ডায়রি করেন। যার নম্বর-১৩৭৫। তারিখ-২০.০৫.২০২১।

এতে তিনি উল্লেখ করেন, কানা হেলাল গবেষণা পরিষদ ও চাঁদের তারা নামে দুটি ফেসবুক আইডিতে তার নাম ও ছবি ব্যবহার করে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করা হচ্ছে। এছাড়া জনৈক হাসিনা বেগম ওরফে পার্লার হাসিনা কিছু লোকজন দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বিভিন্নভাবে হয়রানিসহ মিথ্যা মামলা দিয়ে মান সম্মান ক্ষুন্নসহ বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা করেন জিডিতে।

এ ব্যাপারে হেলাল আহমদ চৌধুরী বলেন, সাংবাদিকতা করার কারণে আজীবন কুচক্রী মহলের সাথে আমার বিরোধ ছিলো। তাদের অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় বিভিন্ন সময়ে মিথ্যা মামলার আসামি হতে হয়েছে। এবারো ন্যায়ের পক্ষে থাকায় গোলাপগঞ্জ থানা পুলিশ ও থানার চিহ্নিত দালাল আবদুল আহাদ ওরফে নুর মিয়ার মদদে এ মিথ্যা মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এ ধরণের মামলা করা হবে এমন আশঙ্কায় কোতোয়ালি থানায় জিডি করার ১০ ঘন্টা পার হওয়ার আগেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তদন্ত ছাড়াই মামলা নিয়েছে গোলাপগঞ্জ থানা পুলিশ। অথচ আমি কোতোয়ালি থানায় জিডির বিষয়টি ওসি হারুনকে জানিয়ে ছিলাম।

তিনি আরো বলেন, আবদুল আহাদ ওরফে নুর মিয়া আমাকে অতীতে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় আসামি করেছে। যার সংখ্যা অন্তত ৬টি। এরমধ্যে সে নিজে একটি মামলার বাদি ও অন্যান্য মামলার ইন্দনদাতা ও তদবীরকারী ছিলো। এছাড়া সাংবাদিক মাহবুব আহমদ চৌধুরী থানার দালাল আহাদের বিরুদ্ধাচারণ করায় ফেনসিডিল ও চুরির মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানি করেছে। এছাড়া গোলাপগঞ্জের শত শত মানুষকে নানা কৌশলে হয়রানি করে আসছে সে।

আরো পড়ুন : গোলাপগঞ্জে বহুরূপি আহাদ জামায়াত-শিবিরকে রক্ষায় তৎপর

গোলাপগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশিদ চৌধুরী বলেন, উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে আইন মেনে হেলাল আহমদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা নেওয়া হয়েছে। তদন্ত শেষে সম্পৃক্ততা পাওয়া না গেলে মামলার ফাইনাল রিপোর্ট প্রদান করা হবে। জিডির বিষয়ে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানা কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে।

মামলার বাদি হাসিনা বেগম বলেন, হেলাল আহমদ চৌধুরী, যা মন চায় তা ফেসবুকে লিখছে। আমার ব্যবসা নিয়েও উল্টাপাল্টা লিখেছেন ফেসবুকে।

তিনি বলেন, কারো সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো বিরোধ নেই। হেলাল আমার ইজ্জতের উপর হামলা করেছেন। তার শাস্তি হওয়া দরকার।

তিনি আরো বলেন, আবদুল আহাদ আমার সম্পর্কে চাচা হলেও গত ১২ বছর ধরে তার সাথে আমার কোনো সম্পর্ক নেই, কথাও হয় না। কারো ইন্দনে মামলা করিনি। আমি জনপ্রতিনিধি বুঝে শুনেই মামলা করেছি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web-NEST- BD
ThemesBazar-Jowfhowo