মঙ্গলবার, ০৫ Jul ২০২২, ০২:৫০ অপরাহ্ন

‘ভয়ঙ্কর’ গলি হাতিমবাগ : নেপথ্যে বিএনপি নেতা ও ‘চাচা’ ফরহাদ

‘ভয়ঙ্কর’ গলি হাতিমবাগ : নেপথ্যে বিএনপি নেতা ও ‘চাচা’ ফরহাদ

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ
ছবি- প্রতিকি


বিশেষ প্রতিবেদক

সিলেট নগরীর শাপলাবাগের ১নং রোড থেকে একটি রাস্তা লামাপাড়াতে মিশে গেছে। গোলাপবাগের মধ্য দিয়ে সবুজবাগ ছুয়ে রাস্তাটি মোটামুটি পাড়া-মহল্লার সাধারণ ৮/১০টি রাস্তার মতোই। শিবগঞ্জের লামাপাড়া যাওয়ার আগে ডানদিকে হাতিমবাগ আবাসিক এলাকা। হাতিমবাগ ঢোকার আগে বাম দিকে একটি রাস্তা ঢুকেছে, চারিদিকে ঘর ও কিছু খালি জায়গা এখানে বিদ্যমান। ছোট এই গলিটাই আশপাশের এলাকার মানুষের কাছে আতঙ্ক ও ‘ভয়ঙ্কর’ গলি নামেই পরিচিত। এক সময় এই এলাকায় আশপাশের ছেলেরা খেলার মাঠে খেলাধুলা করতো। কিন্তু এখন এই ছোট্ট রাস্তা সন্ত্রাসী, মাদক বিক্রেতা ও মাদকসেবীদের আস্তানায় পরিণত হয়েছে।

এই এলাকার কিছু চিহ্নিত অপরাধী কসাইয়ের ছেলে মাদক সেবন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত উজ্জল, সজল, সাইফুল, বঙ্গুসহ সংঘবদ্ধ চক্র বিভিন্ন সময় পুলিশের জালে ধরা পড়েছিল। তাদের অনেকেই আবার জনরোষের শিকার হয়ে গণপিটুনিতে পড়তে হয়েছে।

২/১ জন আবার রাজনৈতিক পরিচয়ের আড়ালে ও ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতার প্রশ্রয়ে রয়ে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এখানে কেউ বাসা-বাড়ি নির্মাণ করতে গেলে বখরা দিতে হচ্ছে বখাটেদের। এমনকি ইট, বালু,পাথর সরবরাহের কাজ সন্ত্রাসীদের দিতে হয়, নতুবা পড়তে হয় বিপাকে। এসব কিছু এলাকার সবারই জানা থাকলেও ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চান না।

জানা গেছে, ওই এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে রাখা একজন । সে ‘চাচা’ ফরহাদ নামে পরিচিত বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হলেও এক সময় চিহ্নিত ছিনতাইকারী ছিলো। পুলিশের খাতায় ভয়ঙ্কর অপরাধী সে। হত্যা, ছিনতাইসহ বিভিন্ন মামলার আসামিও সে। ‘চাচা’ ফরহাদ ভয়ঙ্কর গলির রুহেল এর বাসায় নিয়মিত তাদের আড্ডা বসায়। এখানে বিভিন্ন অপরাধীরা বসে আমোদ ফুর্তি করে এবং তাদের সকল অপকর্ম এখান থেকে পরিচালিত হয়। তারা ওখান থেকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে মাদকসেবীদের সঙ্গে কন্ট্রাক করে এবং জায়গা দখলসহ ঠিকাদারি কাজ বাগিয়ে নেওয়া দেওয়ার তদবির করে।

জানা গেছে, তাদের আয় রোজগারের বৈধ কোনো উৎস না থাকলেও প্রতিদিন চলে রাজার হালে। তারা বিপদে পড়লে রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে এবং ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে কানেকশন গড়ে তুলে। তাদের শেল্টার দেন ওই এলাকার জনৈক বিএনপি নেতা। যিনি ট্রান্সপোর্ট ব্যবসার আড়ালে অবৈধ পথে রাতারাতি বনে গেছেন একাধিক গাড়ির মালিক।

জনশ্রুতি রয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের সঙ্গে পার্টনারশীপে ৮/১০টি গাড়ির মালিক এখন ওই বিএনপি নেতা। নগরীর সোবহানীঘাটে জমজমাট ট্রান্সপোট অফিস ও ব্যবসার আড়ালে পান বৈধ অবৈধ ব্যবসার বখারা।

উল্লেখ্য, ভূমি জবরদখলের আশঙ্কায় করা সাধারণ ডায়েরী (জিডি নং-১৪০৫) করেছিলেন শাহপরান (রহ.) থানাধীন গোলাপবাগ এলাকার তাহুর আহমদ শিব্বির ও আব্দুল মুকিত রমজান। ২৬ জানুয়ারি শাহপরান থানায় হাজির হয়ে দাখিলকৃত সাধারণ ডায়েরীতে উল্লেখ করেন, উক্ত থানাধীন সাদিপুর মৌজার ২য় খন্ড, জেএল-৯৮ এর ৪৬ এসএ খতিয়ানের অন্তভূক্ত নামজারি-৪৩২৯, এসএ ১৫২৭ দাগের ১৫ শতক ভূমির দখলদার তারা। এই ভূমির ভোগ দখল করে আসছেন। তাদের মালিকানা ভূমি নিতে বিআইডিসি এলাকার শিপলু, ফরহাদসহ অজ্ঞাত ৩/৪ জন জবর দখলের চেষ্টায় হুমকি-দামকি দেন। তারা মাটি ভরাট করতে গেলে শ্রমিকদের বিভিন্নভাবে হুমকী দেয়। সাধারণ ডায়েরীর তদন্তের দায়িত্ব পান থানার এসআই ইবায়দুল্লাহ। তিনি জিডির তদন্ত করতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পান। প্রমাণ হিসেবে ছবিও তুলে আনেন।কিন্তু রহস্যজনক কারণে উল্টো ভূমির মালিকের বিরুদ্ধে একটি উগ্রবাদি সংগঠনের নেতা ইকবাল হোসেনকে বাদি করে চাঁদাবাজি মামলা (নং-২৯(০১’২২) দায়ের করা হয়। অথচ ইকবাল হোসেন ওই ভূমির মালিক নয়।

শনিবার সকাল পর্যন্ত অভিযোগকারী ইকবাল হোসেন ও সাক্ষিদের নিয়ে নগরীর সুবহানীঘাটে বিএনপি নেতার মালিকানাধীন ট্রান্সপোর্ট অফিসে বৈঠক শেষে পরিকল্পিতভাবে ভূমির মালিকদের বিরুদ্ধে সাজানো চাঁদাবাজি মামলার সিদ্ধান্ত হয়। সে মোতাবেক তড়িৎ গতিতে দুপুরেই থানায় চাঁদাবাজি মামলা রেকর্ড করা হয়। ওই মামলায় জিডি দায়েরকারী আব্দুল মুকিত রমজান ও তাহুর আহমদ শিব্বির এবং জিডির দুই সাক্ষি আজিম উদ্দিন রাজু ও পিন্টুকে আসামি করা হয়। পুলিশের কথামতো ২৭ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় কাগজাদি নিয়ে থানায় হাজির হন জিডি দাখিলকারী আব্দুল মুকিত রমজান। তিনি দরখাস্ত আকারে ভূমির দালিলিক তথ্যপ্রমাণ দাখিল করতে চাইলে কিন্তু তাদের কাগজাদি থানায় আমলে না নিয়ে ফিরিয়ে দেন।

ওই দরখাস্তে উল্লেখ করা হয়েছিল, ইকবাল হোসেন ভূমির মালিক কিংবা আইনসম্মত প্রতিনিধি নয়। অথচ তাকেই মামলার বাদি দেখানো হয়েছে। এরপর রাতারাতি ঘটনাটি উল্টে যায়। সাজানো চাঁদাবাজি মামলায় করা আসামিদের মধ্য থেকে জমির মালিক আবদুল মুকিত রমজান ও জিডির সাক্ষী আজিম উদ্দিন রাজুকে তাদের জমির কাগজপত্র নিয়ে আসার কথা বলে শিবগঞ্জে ডেকে নিয়ে সাজানো চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo