বুধবার, ০৬ Jul ২০২২, ০১:১৮ অপরাহ্ন

নগরীতে সন্ত্রাসীদের নাকশতার পরিকল্পনা, তৎপর এসএমপি

নগরীতে সন্ত্রাসীদের নাকশতার পরিকল্পনা, তৎপর এসএমপি

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ


নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেট নগরীর পীরমহল্লায় মাদক চোরকারবারী সন্ত্রাসী আবু সাহেল মো. তাহেরের বাসায় নাশকতার পরিকল্পনা খবরে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে পীর মহল্লা প্রভাতী ৭৬ নং বাসায় অভিযান চালানো হয়। একই সময়ে নগরীর শাহী ঈদগাহ ও আম্বরখানা ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই এলাকায় জমায়েতও ছত্রভঙ্গ হয় পুলিশী তৎপরতায়। পুলিশের অভিযানের খবর পেয়েই সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাতে পীর মহল্লার ওই বাসায় চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা জড়ো হতে থাকেন। তাদের প্রত্যেকের পীঠে ব্যাগ দেখে এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে এয়ারপোর্ট থানা পুলিশকে খবর দেন। একইভাবে নগরীর শাহী ঈদগাহ, আম্বরখানা ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই এলাকায়ও স্থানীয়রা সরকার বিরোধী চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা মারমুখী অবস্থান নিয়ে জড়ো হতে দেখে থানা পুলিশকে জানান।

খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ ওইসব স্থানে হানা দেয়। তবে পুলিশ আসার খবরে সন্ত্রাসীরা আগেই ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পুলিশের এমন তৎপরতার প্রশংসা করেছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা বলেন, সিলেট জেলা বিএনপির সম্মেলনকে সামনে রেখে দলের অংগ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীসহ পুলিশের খাতায় তালিকাভূক্ত অপরাধী, ফেরারি আসামি, মাদকচোরাচালানীসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো। তাদের পরিকল্পনার কথাবার্তা শুনে লোকজন পুলিশকে অবহিত করেন।

একাধিক সূত্র জানায়, দাগি, চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা অপতৎপরতা চালিয়ে নিজেদের অবস্থান জানান দিতে আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর পরিকল্পনা করছিল। তবে পুলিশের তৎপরতার কারণে তাদের সেসব পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।

এদিকে, নগরীতে সাংবাদিককে অপহরণের চেষ্টার ঘটনার পর পুলিশী তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. মাইনুল জাকির জানান, গণজমায়েতের খবর পেয়ে পুলিশ ওইসব স্থানে অভিযান চালায়। তবে কাউকে পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশী তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। নিয়মিত টহলের পাশাপাশি বিশেষ অভিযানও পরিচালনা করছে পুলিশ।

এরআগে সোমবার রাত ৮টার দিকে নগরীর জিন্দাবাজার ব্ল-ওয়ার্টার ভবনের পার্কিংস্থল থেকে ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের (ইমজা) সাধারণ সম্পাদক ও এনটিভির স্টাফ করেসপন্ডেন্ট মারুফ আহমদকে অপহরণের চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। অপহরণের চেষ্টার সময় ওই ভবনের গ্যারেজের নিরাপত্তাকর্মীরা এসে তাঁকে উদ্ধার করেন। এসময় মারুফকে মারধর করে নগদ অর্থ ও জরুরি কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায় অপহরণের চেষ্টাকারীরা। রাতেই কোতোয়ালি থানার ওসির নেতৃত্বে এসআই অঞ্জন দেব নাথ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- জালালাবাদ থানাধীন টুকেরবাজারের মইয়ারচর গ্রামের তজম্মুল আলীর ছেলে শামীম আহমদ ও একই গ্রামের মোক্তার আলীর ছেলে সোহেল রানা ওরফে মামুন। গ্রেফতারকৃতদের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছে পুলিশ। আজ বুধবার রিমান্ড শুনানী অনুষ্ঠিত হবে।

এ ঘটনায় মারুফ আহমদ কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এজাহার তিনি উল্লেখ করেন, ব্লু-ওয়ার্টারের আন্ডারগ্রাউন্ডে মোটরসাইকেল পার্কিং করার সময় হঠাৎ করে তিন যুবক মারুফের ওপর হামলা করেন। একই সঙ্গে তাঁরা অপহরণের চেষ্টা চালান। এ সময় তাঁর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করেন। হামলার পুরো ঘটনা ব্লু-ওয়ার্টা মার্কেটের সিসিটিভির ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। সেখানে স্পষ্ট দেখা যায় অপহরণকারীদের কর্মকাণ্ড।

এ ঘটনার পর অনেকটা তৎপর রয়েছে এসএমপি পুলিশ। পাড়া-মহল্লায় গণজমায়েতের খবর পেলেই তাৎক্ষনিক অভিযান চালাচ্ছে।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo