বুধবার, ০৬ Jul ২০২২, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

জুয়ার আখড়া দক্ষিণ সুরমা : ধরা-ছোয়ার বাহিরে চিহ্নিত অপরাধীরা

জুয়ার আখড়া দক্ষিণ সুরমা : ধরা-ছোয়ার বাহিরে চিহ্নিত অপরাধীরা

sylhetlive24/সিলেট লাইভ


বিশেষ প্রতিবেদন

জুয়ার আখড়া সিলেটের দক্ষিণ সুরমা। একাধিক টিকটিকি, জান্ডুমান্ডু, তিন তাস, কাটাকাটি, লটারি জুয়া ও তীর শীলং জুয়ার বোর্ডসহ নানান রকমের জুয়া প্রকাশ্যে চলছে দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন এলাকায়। প্রশাসনের পক্ষ থকে এসব জুয়ার বোর্ডে অভিযান চালিয়ে জুয়াড়িদের আটক করলেও মুল চিহ্নিত অপরাধীরা (বোর্ডের মালিকরা) থেকে যায় ধরা-ছোয়ার বাহিরে। জুয়ার টাকার লোভে উঠতি বয়সের স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া ছেলেরা জুয়ার সাথে জড়িয়ে পড়ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, টাকার বিনিময়ে এসব জুয়ার বোর্ডের মালিকরা জিয়া নামের এক ব্যক্তিকে তাদের বিশেষ সোর্স তৈরী করেছে। এই সোর্স জুয়ার বোর্ডে অভিযানের খবর আগেই জুয়ার বোর্ড মালিকদের কাছে পাঠিয়ে দেয়। এই সোর্স প্রশাসনের নাম ভাঙিয়েও জুয়ার বোর্ড থেকে প্রতিদিন বখরা নেয়। এসব জুয়ার বোর্ডের মালিক একেক জন একাধিক বোর্ডের অংশীদার।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে একজন স্থানীয় বাসিন্দা জানান, জুয়াড়িরা সংঘবদ্ধ চক্র। এদের বিরুদ্ধে কেউই কথা বলতে চায়না।
আমি অতীতে এদের বিরুদ্ধে অনেক প্রতিবাদ করেছি। বিনিময়ে মামলা ও হামলায় পরেছি। এদের কাছে জিম্মি দক্ষিণ সুরমাবাসী। পুলিশ এসব জুয়ার বোর্ডে অভিযান চালিয়ে জুয়াড়িদের আটক করলেও মুল অপরাধীরা (বোর্ডের মালিকরা) থেকে যায় ধরা-ছুয়ার বাহিরে। পরে ওরা আবার টাকা দিয়ে প্রতিবাদি লোকদের নানান ভাবে হয়রানি করে।

sylhetlive24/সিলেট লাইভ

একটি সূত্র জানায়, দক্ষিণ সুরমার গুটিকয়েক সাংবাদিক ছাড়া এসব জুয়ার বোর্ডের বিষয়ে অদৃশ্য কারণে কেউই মিডিয়ায় তুলে ধরতে চান না। সিলেটের কয়েকটি আঞ্চলিক পত্রিকা এবং টিভি চ্যানেলের নাম ভাঙিয়ে স্থানীয় কিছু অসাধু সাংবাদিকরা নিয়মিত এসব জুয়ার বোর্ড মালিকের কাছ থেকে বখরা আদায় করেন। যে কারনে জুয়ারি আটক সংবাদ ছাড়া ঢালাওভাবে মিডিয়ায়ও বিস্তারিত এসব সংবাদ তুলে ধরা হয়না! এছাড়াও সরকার দল এবং বিরোধী দলের অনেক নেতাকর্মীরা এসব জুয়ার বোর্ড থেকে সালামি পান। এসব আশকারায় জুয়ার বোর্ড মালিকরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকা, কদমতলী বালুর মাঠ, ফল মার্কেটের সামন, যমুনা মার্কেট, চাঁদনীঘাট মাছ-বাজার, কীন ব্রীজের নিচ, জিঞ্জির শাহ’র মাজার সংলগ্ন এলাকা, নতুন রেলওয়ে স্টেশন, ভার্থখলা নছিবা খাতুন স্কুলের গলি সহ এসব এলাকায় প্রকাশ্য চলছে টিকটিকি, জান্ডুমান্ডু, তিন তাস, কাটাকাটি, লটারি জুয়া ও তীর শীলং জুয়ার আসর।

দক্ষিণ সুরমার জিঞ্জির শাহ’র মাজার এলাকায় ভাঙ্গাড়ী কাশেম ও জামালের নেতৃত্বে চলছে জুয়ার আসর। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত জমজমাট জুয়ার আসর বসে। তবে এই এলাকায় কাশেম ও জামাল মাজারের পৃথক দুটি স্থানে জুয়ার আসর চালাচ্ছে।

 

sylhetlive24/সিলেট লাইভ

চাঁদনীঘাট এলাকায় ক্বিন ব্রীজের নিচে অপরাধের স্বর্গরাজ্যে তৈরী করেছে মাদক ব্যবসায়ী ও জুয়াড়ি তাহের। তার স্পটে দিনেরাতে প্রকাশ্য চলছে জুয়া, মাদক ও অসামাজিক কর্মকান্ড। দীর্ঘদিন ধরে তাহের এই জুয়ার আসর পরিচালনা করছে।

ভার্থখলায় নছিবা খাতুন স্কুলের গলিতে তীর শীলংয়ের জমজমাট জুয়ার আসর বসিয়েছে কুমিল্লা পট্টির মানিক, আল-আমিন, নজরুল ও বাবুল।

যমুনা মার্কেটের সামনে তিন তাস, কাটাকাটি, লটারি জুয়া বসায় তাজু, বাদশা, মন্নান, আজাদ।

বেটারী মার্কেটের সড়কের পাশে লটারি, তিন তাস, কাটাকাটি ও জান্ডুমান্ডু জুয়ার বোর্ড বসিয়েছে জামাল, তাহের, আকাশ, মানিক, চুন্নু ও শাহজাহান।

ফল মার্কেটের সামনে তীর শীলংয়ের জুয়ার বোর্ড বসিয়েছে সুবেল, বাহার, ফয়েজ, জসিম, জামাল, সুহেল।

ঝালোপাড়ার কাঠাল আড়তে তীর শীলং জুয়ার বোর্ড বসিয়েছে শুরমান, সুহেল, শফিক, ফজলু, আক্তার, তাজু ও ভার্তখলার নজরুল।

ভার্তখলা মাছ-বাজার ও মসজিদের পাশের গলি সিএনজি স্ট্যান্ডের ভিতরে তীর শীলংয়ের বোর্ড বসিয়েছে মেথর পট্টির নার্গিস, টিফিন মান্নান, নজরুল, আইয়ূব ও বাদশা।

ভার্তখলার সুপারি পট্টির পিছনে নদীর পাড়ের কলোনীতে তীর শীলংয়ের বোর্ড বসিয়েছে তাহের, রত্না, ছায়া, নার্গিস, রমজান, সমছু, রতন ও তাজু।

কদমতলী বালুর মাঠ এলাকায় তীর শীলং জুয়ার বোর্ড বসিয়েছে নজরুল, মানিক, বাহার, রতন ও আজমল।

sylhetlive24/সিলেট লাইভ

দক্ষিণ সুরমার এসব এলাকায় প্রশাসনের ঝামেলা কম হওয়ায় পার্শ্ববর্তী এলাকাসহ দুর-দুরান্ত থেকে জুয়াড়ীরা জুয়া খেলতে এখানে আসে। এসব বোর্ডে জুয়াড়ীরা দিনে ও রাতের অন্ধকারে লাইট জালিয়ে জুয়া খেলা চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে এলাকায় চুরি, ছিনতাই বেড়েই চলছে।
এছাড়াও এসব এলাকায় তীর শীলং জুয়ার বোর্ড মালিকের নিয়োগকৃত এজেন্টের লোকদের দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপে এসব খেলায় টাকা বাজি ধরেন জুয়াড়িরা।

কীন ব্রিজের নিচের জুয়ার বোর্ড মালিক তাহের মিয়া প্রতিবেদককে অর্থের লোভ দেখান এবং হুমকি দেন। তাহের মিয়া বলেন, এসব লিখলে আমার কিছুই হবে না। আমি এই এলাকার সিনিয়র সাংবাদিকদের এবং প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মেনেজ করেই এসব করছি। অযথা বারাবাড়ি করবেন না।

আমরা প্রতিদিন জিয়ার মাধ্যমে প্রশাসনের বাট পাঠাই বলে জানান, বেটারী মার্কেটের সড়কের পাশে লটারি, তিন তাস, কাটাকাটি ও জান্ডুমান্ডু জুয়ার বোর্ডের জামাল। তিনি বলেন, প্রশাসনের অনুমোতি নিয়েই এখানে লটারি খেলা চলছে। স্থানীও সাংবাদিকরাও এসব বিষয়ে নাক গলান না, আপনি কে?
জিয়া কে এমন প্রশ্নের জবাবে, তিনি জানান জিয়া প্রশাসনের লোক।

সিলেট লাইভ দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন জুয়ার স্পট নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে। গত ৬ জুন দক্ষিণ সুরমার জিঞ্জির শাহ মাজারের পাশে পুলিশ অভিযান চালিয়ে আতিক মিয়া (৫০) ও মো. আলাল (১৮) দুই জুয়াড়িকে আটক করে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দক্ষিণ সুরমা থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল হাসান তালুকদার।

জুয়া নামক মানসিক ব্যাধি থেকে দক্ষিণ সুরমাকে মুক্ত দেখতে চান এসব এলাকার বাসিন্দারা। তারা প্রশাসনের সঠিক নজরদারি এবং হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo