রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন

সরকারি নির্দেশনা :
করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মাস্ক পরুন, নিরাপদ থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন এবং পরিবারকে সুস্থ রাখুন। সৌজন্যে : SylhetLive24.com
আজকের গুরুত্বপূর্ণ যত খবর
গোলাপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনা, দাদা-নাতি নিহত রোববার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সুনামগঞ্জ-ঢাকা বাস চলাচল বন্ধ সিলেটে বিদ্যুৎ বিভ্রাট : তীব্র গরমে দুর্ভোগে নগরীর কয়েক হাজার মানুষ সিসিকের ৮৩৯ কোটি টাকার বাজেট পেশ আশায় বুক বাঁধছেন হাফিজুল, পাশে দাঁড়াচ্ছেন হৃদয়বানরা শনিবার সিলেটের যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ থাকবে না পুলিশ এসল্ট মামলায় ছাত্রনেতা সুহেল কারাগারে সিলেটে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিক দিপনকে হুমকি বালুচরে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা, আসামীরা অধরা সিলেটে ৮ ভূয়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা সিলেটে আবাসিক হোটেলে ফুর্তি, ধরা পড়লেন ১০ নারী-পুরুষ টিলাগাঁওয়ে পুলিশের অভিযান : ৪ জুয়াড়ি আটক ৭ দিনের মধ্যে অনিবন্ধিত সব অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ সিলেটে বিদ্যালয়ের মাঠে গ্রাসরুটস’র মেলা, বিপাকে কর্তৃপক্ষ জাফলংয়ে চলছে বালু লুটের মহোৎসব : নেপথ্যে জামাই সুমন চক্র সিলেটে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী মিলাদ গ্রেফতার সিলেট জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সব কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা র‍্যাবের হাতে সেই ধর্ষক মিলাদ আটক ইউএসএ ছাত্রদল নেতা কয়েছকে বিদায় সংবর্ধনা অজি মো. কাওছারের পাশে লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন জাতীয়তাবাদী পরিবার
জাফলংয়ে চলছে বালু লুটের মহোৎসব : নেপথ্যে জামাই সুমন চক্র

জাফলংয়ে চলছে বালু লুটের মহোৎসব : নেপথ্যে জামাই সুমন চক্র

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ
ফাইল ছবি। লাল বক্সে উপরে বা থেকে সুভাষ, সুমন, ফয়জুল ও মুজিবুর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট লাইভ ডেস্ক
সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ে ‘নিষিদ্ধ জোন’ থেকে অবাধে চলছে বালু লুট। বালু লুটের নেপথ্যে জামাই চক্র। বালুখেকোরা বোমা ও ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার বালু লোপাট করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে পরিবেশ। নদীগর্ভে চলে যাচ্ছে অনেক এলাকা। অবৈধ বোমা মেশিনের শব্দে অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন স্থানীয়রা। মাঝে-মধ্যে প্রশাসন অভিযান চালালেও তা কাজে আসে না। বালুখেকোদের এমন তাণ্ডব থেকে পর্যটন কেন্দ্র জাফলংকে বাঁচাতে সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা কামনা করেছেন স্থানীয় বাসিন্দরা।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা ২টায় সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এলাকাবাসীর পক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বালু লুটপাটের এ অভিযোগ করেন জাফলং নয়াবস্তি গ্রামের বাসিন্দা মো. খোকন মিয়া। এ সময় তিনি চিহিৃত বালুখেকো চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ ও জাফলংকে রক্ষার দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে খোকন মিয়া বলেন, ৮/৯ বছর আগে জাফলং পর্যটন কেন্দ্র, পাথর ও বালুমহালসহ প্রায় ১২ কিলোমিটার এলাকাকে পরিবেশ সংকটাপন্ন বা ইসিএ জোন হিসেবে চিহ্নিত করে ওই এলাকা থেকে বালু ও পাথর উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন হাইকোর্ট। নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বালুখেকো চক্রের সদস্যরা প্রতিদিন অবাধে বালু লুট করে নিয়ে যাচ্ছে।

খোকনের দাবি, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ইজারা বহির্ভুত এলাকা থেকে প্রতিদিন ১৫-২০ লাখ টাকা করে গত ৩ মাসে প্রায় ১৫ কোটি টাকার বালু লুটপাট করা হয়েছে। তাছাড়া প্রতিদিন হাজার হাজার বালুবাহী কার্গো নৌকা চলাচলের কারনে জাফলং ব্রিজ, গোয়াইনঘাট ব্রিজ, সালুটিকর ব্রিজসহ শত শত কোটি টাকায় নির্মিত সেতু হুমকির মুখে পড়েছে। বালুখেকো চক্রের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ডৌবাড়ি এলাকার লামা দোমকা গ্রামের বাসিন্দা সুভাস দাস, লেঙ্গুরা গ্রামের মুজিবুর রহমান, মামার দোকান মেলার মাঠের বাসিন্দা ইমরান হোসেন সুমন ও বিশ্বনাথের ফয়জুল ইসলাম ও আসামপাড়া গ্রামের শামসুল আলম।

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ

খোকন বলেন, গোয়াইনঘাট উপজেলায় কেবলমাত্র সালুটিকর ব্রিজের উজানে গোয়াইন ১১৭ নামের একটি বৈধ বালুমহাল এবার ইজারা দেওয়া হয়েছে। সালুটিকর ব্রিজের উজানে নন্দিরগাঁও এলাকায় ওই বালুমহালের অবস্থান। কিন্তু বালুখেকো চক্রটি ইজারা বহির্ভূত এলাকা থেকেও বালু লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। মাঝে-মধ্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা একাধিকবার অভিযান চালালেও বালু উত্তোলন বন্ধ হয়নি। বালুখেকো চক্রটি লিজ বহির্ভূত সংরক্ষিত এলাকা থেকে বালু লুটপাট করে পার্শ্ববর্তী জৈন্তাপুরের সারি-১ ও সারি-২ বালুমহালের কাগজ দিয়ে বালুভর্তি কার্গো নৌকা পাচার করছে। তাছাড়া প্রতিটি নৌকা থেকে রয়েলিটিসহ লাইন দেওয়ার নামে বালুর ফুটপ্রতি ৬ টাকা করে আদায় করছে। এমনকি ছাতক পর্যন্ত কার্গো বের করে দেওয়ার নামে প্রতি কার্গো থেকে ৫/৬ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করছে।

সংবাদ সম্মেলনে খোকন বলেন, চক্রটির বেপরোয়া লুটপাটের কারণে এবং বোমা ও ড্রেজার মেশিনের শব্দে গোটা এলাকায় শব্দদূষন হচ্ছে। জাফলংয়ের পিয়াইন নদীর বাগান এলাকায় অবাধে বালু উত্তোলনের ফলে জাফলং চা-বাগান হুমকির মুখে পড়েছে। কান্দুবস্তি ও নয়াবস্তি এলাকাও পড়েছে হুমকির মুখে। ওই দুই গ্রামের বাসিন্দারা ঢল থেকে রক্ষার জন্য যে বাঁধ দিয়েছিলেন সেটিও বালুখেকোরা লুটেপুটে খেয়ে নিয়েছে। স্থানীয় সাংসদ, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইমরান আহমদের একান্ত প্রচেষ্টায় শত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত গোয়াইনঘাটবাসীর স্বপ্নের সেতু জাফলং ব্রিজও হুমকির মুখে রয়েছে।

জামাই চক্রের সদস্যরা হল গোয়াইনঘাট যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সুভষ দাস, এমরান হোসেন সুমন ওরফে জামাই সুমন, মুজিবুর ও ফয়জুল মিয়াসহ কয়েক জনের নেতৃত্বে এখন মূর্তিমান ত্রাস। প্রতিদিনই তাদের নিয়োজিত সন্ত্রাসী বাহিনী প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেয়। বাইরে থেকে লোকজন এনেও মহড়া দেয়। এতে চরম আতঙ্কে স্থানীয় বাসিন্দারা। প্রতিবাদ করলে হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়। যে কোনো সময় ওই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে খুনোখুনির আশঙ্কা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে তারা চিহ্নিত বালুখেকো চক্রের কবল থেকে জাফলং নয়াবস্তি, কান্দুবস্তি, জাফলং চা-বাগান ও জাফলং ব্রিজ রক্ষার জন্য ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী, স্থানীয় সাংসদ, বিভাগীয় প্রশাসন, ডিআইজি, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web-NEST- BD
ThemesBazar-Jowfhowo