মঙ্গলবার, ০৫ Jul ২০২২, ০৩:৪৩ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে মসজিদ নির্মাণের নামে সরকারি স্কুলের জমি দখল

জগন্নাথপুরে মসজিদ নির্মাণের নামে সরকারি স্কুলের জমি দখল

sylhetlive24/সিলেট লাইভ


সিলেট লাইভ ডেস্ক

সুনাগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় তিলক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমিতে সরকারি সকল বিধি নিষেধ উপেক্ষা করে মসজিদের নামে সাইনবোর্ড লাগিয়ে বিদ্যালয়ে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে তিলক গ্রামের মৃত মারফত খানের ছেলে বাবুল খানসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় ভাবে তারা সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক হওয়ায় তাদের এসব কাজের বাধা দেওয়ার সাহস নেই কারো। অথচ যে স্থানে জোরপূর্বক মসজিদটি তারা নির্মাণ করার চেষ্টা করছেন ঠিক ৭০/৭৫ গজের মধ্যে রয়েছে এলাকার ২শত বছরের পুরাতন শাহী জামে মসজিদ।

বাবুল ছিলেন সেই মসজিদের মুতাওয়াল্লী, অর্থ অত্মসাথের অভিযোগে তাকে মসজিদ কমিটি থেকে সরিয়ে দিলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে নতুন মসজিদ নির্মাণে মরিয়া হয়ে উঠেন।

স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ, নতুন মসজিদ নির্মাণের জমি না পেয়ে তিনি সরকরি স্কুলের জমি জবর দখল করতেই চালিয়ে যাচ্ছেন নানা রকম অপকৌশল। তবে স্কুলের এই জমি রক্ষায় সুনামগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস আদালতে দ্বারস্থ হয়ে একাধিক মামলা মোকদ্দমা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি স্থানীয় গ্রামবাসীর পক্ষে সরকারি স্কুলের জমি রক্ষায় স্থানীয় শাহী জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লী শাহ আলম খানও বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন।

এ ছাড়া তিনি নিজে বাদী হয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত সুনামগঞ্জে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৪৪ ধারা জারি করতে একটি মামলাও দায়ের করেন। যাহার মামলা নং ১৯৮/২০১৯ ইং।

এরই জেরধরে প্রভাবশালী বাবুল খানগংদের হামলার শিকার হন তিলক গ্রামের বাসিন্দা মৃত আবদাল খানের ছেলে আবুল কালাম, শাহ আলমসহ স্থানীয় অনেকে। এছাড়া তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন দখলবাজ বাবুলসহ তার সহযোগীরা।

মামলা সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার তিলক মৌজার জেএল নং ১২২, এসএ ৪৬৫নং খতিয়ানের, এসএ ৩০৮৫নং দাগে ০.১৪ একর ও ৩০৯২নং দাগে ০.৩৩ একর মোট ০.৪৭ একর জমির মূল মালিক রুমন খান ও সমুজ খানগং। বিগত ০৩/০২/১৯২৮ ইং ৬২৬নং রেজিস্ট্রারী দানপত্র দলিলমূলে ১৫ শতক জমি তারা লোকাল শিক্ষা বোর্ড সুনামগঞ্জ বরাবরে সম্পাদন করে দেন। সময়ের ব্যবধানে সেখানে টিনসেটের স্কুল থেকে গড়ে উঠে তিলক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাকা ভবন। পরবর্তীতে আবারও রুমন খান ও সমুজ খানের উত্তরাধিকারী হিরণ খান ও আলতাফ খান প্রতিষ্ঠানটির অনুকুলে ডেপুটি কমিশনার সুনামগঞ্জ বরাবরে ২৪০৫নং রেজিস্ট্রারী দানপত্রে নি:শর্ত ভাবে আরেকটি দলিল সম্পাদন করে দেন। হঠাৎ করে বিগত কয়েক বছর ধরে উক্ত দানপত্র দলিলদাতা হিরনখান সহ দাতাগণের উত্তরাধিকারগণ উক্ত জমি তাদের মালিকানা দাবী করে সিনিয়র সহকারী জজ সুনামগঞ্জ সদর আদালতে একটি স্বত্ব মামলা দায়ের করেন বসেন। স্বত্ব মামলা নং ৩৬/২০০৯ ইং।

এই মামলায় বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ডেপুটি কমিশনার সুনামগঞ্জ বিবাদী হয়ে জেলা জজ আদালত সুনামগঞ্জে একটি স্বত্ব আপিল মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং ৩০৩/২০১৫ইং। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। কিন্তু উক্ত জমি নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন থাকাবস্থায় দানপত্র দলিল দাতাগণ ও তাদের উত্তরাধিকারগণ প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় ভাবে ক্ষমতার প্রভাব দেখাতে গিয়ে বাবুল খানসহ তার সহযোগীরা গ্রামের ১৮২০ সালে নির্মিত পুরাতন পূর্ব তিলক পশ্চিমপাড়া শাহী জামে মসজিদের মাত্র ৭০/৭৫ গজ ব্যবধানে তিলক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মালিকানাধীন বিতর্কিত এই জমিতে পূর্বতিলক বায়তুল মামুর নামক একটি নতুন মসজিদ তৈরি করার নামে সরকারি স্কুলের জমি জবর দখলের চেষ্টা করে আসছেন। পুরাতন মসজিদের মাত্র ৭০/৭৫ গজ ব্যবধানে নতুন মসজিদ নির্মাণের নাকে সরকারি স্কুলের জমি গ্রাস করে নিতে মসজিদ নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাওয়ায় স্থানীয় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা বিরাজমান।

অপরদিকে সরকারি প্রাথমিক স্কুলের জমি রক্ষার মামলাও আদালতে চলমান থাকাবস্থায় সরকারি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমিতে নতুন মসজিদ নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে গ্রামবাসী সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo