সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন

জকিগঞ্জে ডাইক ভেঙে ডুবল ৭টি গ্রাম

জকিগঞ্জে ডাইক ভেঙে ডুবল ৭টি গ্রাম

sylhetlive24/সিলেট লাইভ


জকিগঞ্জ সংবাদদাতা

জকিগঞ্জ উপজেলার অমলশিদ এলাকার বরাক মোহনায় সুরমা-কুশিয়ারা উৎসস্থলে ত্রি-গাঙের ডাইক ভেঙে প্রবল বেগে পানি ঢুকে জকিগঞ্জের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ডাইক ভেঙে যায়। এ ভাঙনে সিলেটের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে বলে আশংকা রয়েছে।

জানা গেছে, পাহাড়ি ঢলের তীব্র স্রোতে ভারতের সীমান্তবর্তী বরাক নদের মোহনায় ডাইকটি ভেঙে যায়। এর পর মুহূর্তেই জকিগঞ্জের ফিল্লাকান্দি, অমলশিদ, বারঠাকুরী, খাসিরচক, খাইরচক, বারোঘাট্টা, সোনাসারসহ বেশ কিছু এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। একই সঙ্গে জকিগঞ্জ উপজেলা সদরের সঙ্গে অমলশিদ যাতায়াতের রাস্তাটিও পানিতে ডুবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে এ রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ আছে।

ডাইক ভেঙে পানি ঢুকতে থাকায় আগে থেকেই প্লাবিত উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতের বরাক নদ থেকে প্রবল বেগে পানি এখন সুরমা ও কুশিয়ারা নদীতে গিয়ে ঢুকছে।

অমলশিদের বাসিন্দারা জানান, শুরুতে তীব্র পাহাড়ি ঢলের ধাক্কায় ডাইকের ২০ ফুট ভেঙে গিয়েছে। ধীরে ধীরে পানির তোড়ে ডাইকটি আরও ভাঙতে থাকে।শুক্রবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে ডাইকের কমপক্ষে ৬০ ফুট অংশ ভেঙে যায়। এ অবস্থায় ডাইকের ঠিক পাশেই অবস্থিত অমলশিদ ও ফিল্লাকান্দি গ্রামের বাসিন্দারা প্রচুর ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছেন। এ দুটি গ্রাম বেশি প্লাবিত হয়েছে।

এলাকাবাসী আরও জানিয়েছেন, সিলেট থেকে প্রায় ৯২ কিলোমিটার দূরে জকিগঞ্জের অবস্থান। এটি জেলার সবচেয়ে দূরবর্তী উপজেলা। ভারতের করিমগঞ্জ জেলার বরাক নদের দুটি শাখা হচ্ছে সুরমা ও কুশিয়ারা নদী। এদের মিলনস্থল হচ্ছে জকিগঞ্জ উপজেলার অমলশিদ এলাকা। এই অমলশিদে একটি ডাইক আছে। বরাক থেকে পানি এসে প্রথমে সরাসরি এ ডাইকে আঘাত করে। এরপর পানি ভাগ হয়ে সুরমা ও কুশিয়ারায় প্রবাহিত হয়।

সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর মাধ্যমেই মূলত সিলেট বিভাগের প্রায় ১০০টি নদ-নদীতে পানি প্রবাহিত হয়। এখন ডাইক ভেঙে যাওয়ায় পানি কোনো বাধা না পেয়ে তীব্র গতিতে সরাসরি সুরমা ও কুশিয়ারায় গিয়ে ঢুকছে। ফলে পুরো সিলেট জেলায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কা রয়েছে।

জকিগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পল্লব হোম দাস বলেন, ডাইকটি ভেঙে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীতে প্রবল বেগে পানি ঢুকছে। এতে নতুন করে উপজেলার কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এ ডাইক ভাঙার কারনে সিলেটের অন্য উপজেলায়ও পানি বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে।

আগের রাতের ভারী বৃষ্টিতে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বেশ কিছু স্থানে পানি বাড়ার খবর পাওয়া গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সিলেট কার্যালয় জানিয়েছে, সিলেটের সুরমা নদীর দুটি পয়েন্টে পানি আজও বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বানভাসি মানুষেরা বলছেন, বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দুর্ভোগও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। খাবার ও বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট দেখা দিয়েছে। গো-খাদ্যের সংকটও তীব্র আকার ধারণ করেছে। বাড়িঘরে পানি উঠে পড়ায় অনেকে মাচা বেঁধে থাকছেন। বেড়েছে পানিবাহিত রোগ-ব্যধিও। সাপ, জোঁক ও পোকামাকড়ের উপদ্রবও বেড়েছে বলে বানভাসি মানুষেরা জানিয়েছেন।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo