রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

সরকারি নির্দেশনা :
করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মাস্ক পরুন, নিরাপদ থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন এবং পরিবারকে সুস্থ রাখুন। সৌজন্যে : SylhetLive24.com
আজকের গুরুত্বপূর্ণ যত খবর
গোলাপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনা, দাদা-নাতি নিহত রোববার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সুনামগঞ্জ-ঢাকা বাস চলাচল বন্ধ সিলেটে বিদ্যুৎ বিভ্রাট : তীব্র গরমে দুর্ভোগে নগরীর কয়েক হাজার মানুষ সিসিকের ৮৩৯ কোটি টাকার বাজেট পেশ আশায় বুক বাঁধছেন হাফিজুল, পাশে দাঁড়াচ্ছেন হৃদয়বানরা শনিবার সিলেটের যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ থাকবে না পুলিশ এসল্ট মামলায় ছাত্রনেতা সুহেল কারাগারে সিলেটে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিক দিপনকে হুমকি বালুচরে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা, আসামীরা অধরা সিলেটে ৮ ভূয়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা সিলেটে আবাসিক হোটেলে ফুর্তি, ধরা পড়লেন ১০ নারী-পুরুষ টিলাগাঁওয়ে পুলিশের অভিযান : ৪ জুয়াড়ি আটক ৭ দিনের মধ্যে অনিবন্ধিত সব অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ সিলেটে বিদ্যালয়ের মাঠে গ্রাসরুটস’র মেলা, বিপাকে কর্তৃপক্ষ জাফলংয়ে চলছে বালু লুটের মহোৎসব : নেপথ্যে জামাই সুমন চক্র সিলেটে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী মিলাদ গ্রেফতার সিলেট জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সব কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা র‍্যাবের হাতে সেই ধর্ষক মিলাদ আটক ইউএসএ ছাত্রদল নেতা কয়েছকে বিদায় সংবর্ধনা অজি মো. কাওছারের পাশে লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন জাতীয়তাবাদী পরিবার
কোম্পানীগঞ্জের সেই নার্স হালিমাকে শোকজ, বদলি

কোম্পানীগঞ্জের সেই নার্স হালিমাকে শোকজ, বদলি

sylhetlive24.com

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশব্যাপী চলছে কঠোর লকডাউন। সরকারের তরফ থেকে বার বার মাস্ক পরিধান করা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানানো হলেও খোদ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরাই স্বাস্থ্যবিধি মানতে নারাজ। বরং মাস্ক পরিধান করবেন না বলেও হুমকি দিচ্ছেন।

বিষয়টি নিয়ে সিলেট লাইভ ”কোম্পানীগঞ্জের নার্স হালিমার হুংকার, মাস্ক পরব না; তুই বলার কে?” শিরোনামে একটি প্রতিবেদন করে। সেই প্রতিবেদন প্রকাশের পর টনক নড়ে সিলেটের সাস্থ্য বিভাগের। রোগী ও রোগীর স্বজনদের সাথে হালিমার অসাধআচরণের অভিযোগে তাকে শোকজ করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেটের সাস্থ্য বিভাগ সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মন্ডল। এছাড়া সিলেটের সাস্থ্য বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে শীঘ্রই হালিমাকে কোম্পানীগঞ্জ থেকে বদলী করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে সেই সিন্ধান্তও নেওয়া হয়েছে।

আগে প্রকাশিত প্রতিবেদন : কোম্পানীগঞ্জের নার্স হালিমার হুংকার, মাস্ক পরব না; তুই বলার কে?

এরআগে গত শুক্রবার ঈদে দিনর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স হালিমা আক্তার মাস্ক পরতে বলায় চটে যান রোগীর স্বজনদের ওপর। খবর পেয়ে সংবাদকর্মীরা হাজির হলে তিনি তাদের বিরুদ্ধে চড়া হন। ঘটনার ছবি ও ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সেখানে অনেকেই ক্ষুব্ধ মন্তব্য করছেন অনেকেই। ২০২০ সালে করোনাসংক্রমণের শুরু থেকেই কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টেস্ট শুরু হয়, যা অদ্যাবধি পর্যন্ত চলমান রয়েছে। একই হাসপাতালে চলছে ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রমও। গত ১০ মে সকালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ১৫ দিন বয়সী শিশু হোসাইনকে নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন গাছগড় গ্রামের গৃহবধূ ফাতেমা বেগম। কিন্তু শিশু হোসাইনের অবস্থার কোনো উন্নতি হচ্ছিল না। ফাতেমার ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও বিকল হয়ে যায় হাসপাতালে থাকাবস্থায়। উপায়ান্তর না দেখে শুক্রবার ঈদুল ফিতরের দিন বিকেলে ফাতেমার ভাই আইনজীবী জাকির হোসেন সুমন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সদরে তার পরিচিত এক ছোটভাইকে অনুরোধ জানান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে হোসাইনের অবস্থা দেখে জাকিরকে বিস্তারিত জানানোর জন্য। জাকিরের কথামতো ওই যুবক শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে এডভোকেট জাকিরের সাথে তার বোনের কথা বলিয়ে দেন। এরপর জাকির ওই যুবককে কর্তব্যরত চিকিৎসক বা নার্সের সাথে কথা বলে শিশুটির অবস্থা সম্পর্কে জানতে বলেন। তার কথামতো ওই যুবক কর্তব্যরত চিকিৎসকের রুমে উপস্থিত হন। কোনো চিকিৎসক না থাকলেও সেখানে বসা ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স হালিমা আক্তার। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক পরিধান না করেই হাসপাতালের স্টাফদের সাথে খোশগল্পে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এসময় রোগীর স্বজন ওই যুবক হালিমাকে মাস্ক পরিধানের জন্য অনুরোধ জানান।

সেই সময়ে তাৎক্ষণিক তেলেবেগুনে জ্বলে উঠেন নার্স হালিমা। তিনি চিৎকার করে বলেন, ‘আমি মাস্ক পরব না, কি সমস্যা? আমি মাস্ক পরব কি পরব না, সেটা বলার তুই কে?’ রোগীর স্বজন আবারও ওই নার্সকে মাস্ক পরার অনুরোধ জানালে তিনি আরও চটে যান৷ এসময় নার্স হালিমা রোগীর স্বজনদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। তার চিৎকার শুনে হাসপাতালের স্টাফ এবং হাসপাতাল সংলগ্ন ফার্মেসির দালালেরা ছুটে আসেন। এসময় সকিনা বেগম নামের হাসপাতালের এক স্টাফ বারবার হালিমাকে চুপ করার জন্য অনুরোধ জানালেও তা কানে নেননি ওই নার্স।

খবর পেয়ে স্থানীয় কয়েকজন সংবাদকর্মী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। হালিমা এসময় সংবাদকর্মীদের উপর হামলে পড়েন। স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণ, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কটুক্তি এবং ক্যামেরা ছিনিয়ে নেওয়ারও চেষ্টা করেন নার্স হালিমা আক্তার। এসময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন আরিফুল ইসলাম রুবেল নামে এক চিকিৎসক। তিনিও ঘটনাটি জেনে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেন!

হাসপাতালে থাকা রোগী ও তাদের স্বজনেরা জানান, নার্স হালিমা বরাবরই তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করে আসছেন। এমনকি করোনা মহামারীর এই সময়ে মাস্ক পরিধান না করে ডিউটি পালন করে নিজেকে এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের হুমকির মুখে ফেলছেন ওই নার্স।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসক বলেন, হালিমা মেয়েটা আসলেই বেয়াদব। হালিমার বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাও ইউনিয়নের জুগিরগাও গ্রামে। সে মৃত হরমুজ আলীর মেয়ে।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের নার্স হালিমা আক্তারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার কথা বলতে বলেন।।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web-NEST- BD
ThemesBazar-Jowfhowo