শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৭:২৬ পূর্বাহ্ন

সরকারি নির্দেশনা :
করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে মাস্ক পরুন, নিরাপদ থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন এবং পরিবারকে সুস্থ রাখুন। সৌজন্যে : SylhetLive24.com
আজকের গুরুত্বপূর্ণ যত খবর
জকিগঞ্জে চলছে মাইকিং : ঢুকছে পানি, ভাঙলো ৩ নদীর মোহনার ডাইক মাধবপুরে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীর গালে ছ্যাঁকা! ছাত্রদল নেতা রুবেল ও রাসেলের জামিন লাভ, কারা ফটকে সংবর্ধনা বজ্রপাতে তিন শিশুর মৃত্যু শিশু অধিকার বাস্তবায়ন সম্পর্কিত জবাবদিহিতা বিষয়ক সংলাপ সিলেটে বন্যার্তদের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরণ করলেন জেবুল সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে : ডা. শিপলু জগন্নাথপুরে মসজিদ নির্মাণের নামে সরকারি স্কুলের জমি দখল সিলেট সদর উপজেলা যুবদল থেকে ডালিম বহিস্কার সিলেটে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত বিশ্বনাথে ধর্ষকের হুমকি, অসহায় মা-মেয়ে উপশহরে পানিবন্দি মানুষের পাশে দিদার রুবেল অ্যাড. জামানের মায়ের সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল সিলেটে বন্যার্তদের পাশে মহানগর আ. লীগের সহ সভাপতি আসাদ উদ্দিন সিলেট নগরী রক্ষার্থে ‘শহর রক্ষা বাঁধ’ নির্মাণ প্রয়োজন : মহানগর বিএনপি সিলেটের বানভাসী মানুষদের পর্যাপ্ত ত্রাণ দেওয়ার দাবি বাসদের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী রুবি আলমের উদ্যোগে খাদ্য বিতরণ সিলেটে জামায়াত-শিবিরের ২১ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা ছাত্রদল নেতা রুবেল ও রাসেলের গ্রেফতারে কয়েছ লোদীর নিন্দা দেশের মানুষ সরকারের পাশে, ষড়যন্ত্রকারীদের স্বপ্ন কোনোদিন পূরণ হবে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
কোম্পানীগঞ্জের নার্স হালিমার হুংকার, মাস্ক পরব না; তুই বলার কে?

কোম্পানীগঞ্জের নার্স হালিমার হুংকার, মাস্ক পরব না; তুই বলার কে?

sylhetlive24.com


নিজস্ব প্রতিবেদক :: করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশব্যাপী চলছে কঠোর লকডাউন। সরকারের তরফ থেকে বার বার মাস্ক পরিধান করা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানানো হলেও খোদ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরাই স্বাস্থ্যবিধি মানতে নারাজ। বরং মাস্ক পরিধান করবেন না বলেও হুমকি দিচ্ছেন।

শুক্রবার ঈদে দিনর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এমন ঘটনা ঘটেছে। ওই হাসপাতালের কর্তব্যরত হালিমা আক্তার নামের এক নার্সকে মাস্ক পরতে বলায় চটে যান রোগীর স্বজনদের ওপর। খবর পেয়ে সংবাদকর্মীরা হাজির হলে তিনি তাদের বিরুদ্ধে চড়া হন। ঘটনার ছবি ও ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সেখানে অনেকেই ক্ষুব্ধ মন্তব্য করছেন অনেকেই।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, নার্স হালিমাকে হাসপাতালের চিকিৎসকরাও ‘বেয়াদব’ বলে জানেন।

জানা গেছে, ২০২০ সালে করোনাসংক্রমণের শুরু থেকেই কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টেস্ট শুরু হয়, যা অদ্যাবধি পর্যন্ত চলমান রয়েছে। একই হাসপাতালে চলছে ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রমও।

গত ১০ মে সকালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ১৫ দিন বয়সী শিশু হোসাইনকে নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন গাছগড় গ্রামের গৃহবধূ ফাতেমা বেগম। কিন্তু শিশু হোসাইনের অবস্থার কোনো উন্নতি হচ্ছিল না। ফাতেমার ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও বিকল হয়ে যায় হাসপাতালে থাকাবস্থায়। উপায়ান্তর না দেখে শুক্রবার ঈদুল ফিতরের দিন বিকেলে ফাতেমার ভাই আইনজীবী জাকির হোসেন সুমন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সদরে তার পরিচিত এক ছোটভাইকে অনুরোধ জানান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে হোসাইনের অবস্থা দেখে জাকিরকে বিস্তারিত জানানোর জন্য। জাকিরের কথামতো ওই যুবক শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে এডভোকেট জাকিরের সাথে তার বোনের কথা বলিয়ে দেন। এরপর জাকির ওই যুবককে কর্তব্যরত চিকিৎসক বা নার্সের সাথে কথা বলে শিশুটির অবস্থা সম্পর্কে জানতে বলেন। তার কথামতো ওই যুবক কর্তব্যরত চিকিৎসকের রুমে উপস্থিত হন। কোনো চিকিৎসক না থাকলেও সেখানে বসা ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স হালিমা আক্তার। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক পরিধান না করেই হাসপাতালের স্টাফদের সাথে খোশগল্পে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এসময় রোগীর স্বজন ওই যুবক হালিমাকে মাস্ক পরিধানের জন্য অনুরোধ জানান।

তাৎক্ষণিক তেলেবেগুনে জ্বলে উঠেন নার্স হালিমা। তিনি চিৎকার করে বলেন, ‘আমি মাস্ক পরব না, কি সমস্যা? আমি মাস্ক পরব কি পরব না, সেটা বলার তুই কে?’ রোগীর স্বজন আবারও ওই নার্সকে মাস্ক পরার অনুরোধ জানালে তিনি আরও চটে যান৷ এসময় নার্স হালিমা রোগীর স্বজনদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। তার চিৎকার শুনে হাসপাতালের স্টাফ এবং হাসপাতাল সংলগ্ন ফার্মেসির দালালেরা ছুটে আসেন। এসময় সকিনা বেগম নামের হাসপাতালের এক স্টাফ বারবার হালিমাকে চুপ করার জন্য অনুরোধ জানালেও তা কানে নেননি ওই নার্স।

খবর পেয়ে স্থানীয় কয়েকজন সংবাদকর্মী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। হালিমা এসময় সংবাদকর্মীদের উপর হামলে পড়েন। স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণ, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কটুক্তি এবং ক্যামেরা ছিনিয়ে নেওয়ারও চেষ্টা করেন নার্স হালিমা আক্তার। এসময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন আরিফুল ইসলাম রুবেল নামে এক চিকিৎসক। তিনিও ঘটনাটি জেনে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেন!

হাসপাতালে থাকা রোগী ও তাদের স্বজনেরা জানান, নার্স হালিমা বরাবরই তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করে আসছেন। এমনকি করোনা মহামারীর এই সময়ে মাস্ক পরিধান না করে ডিউটি পালন করে নিজেকে এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের হুমকির মুখে ফেলছেন ওই নার্স।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসক বলেন, হালিমা মেয়েটা আসলেই বেয়াদব। হালিমার বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাও ইউনিয়নের জুগিরগাও গ্রামে।
সে মৃত হরমুজ আলীর মেয়ে।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের নার্স হালিমা আক্তারের মুঠোফোনে কল করলে তিনি রিসিভ না করে কেটে দেন। পরবর্তিতে মুঠোফোনে আবার কল করলে ব্যস্ত দেখায়।

এ ব্যাপারে ঈদের ছুটিতে থাকা কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) কামরুজ্জামান রাসেল বলেন, আমি বিষয়টি দেখছি।

বিষয়টি জানেন না সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মন্ডল। তিনি বিষয়টির খোঁজ নিয়ে অভিযুক্ত নার্সের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web-NEST- BD
ThemesBazar-Jowfhowo