রবিবার, ০৩ Jul ২০২২, ১১:৪৪ অপরাহ্ন

করোনাকালে রাতের আঁধারে ছুটেন তিনি

করোনাকালে রাতের আঁধারে ছুটেন তিনি

sylhetlive24.com/সিলেট লাইভ


আতিকুর রহমান নগরী

দুই বছর যাবত দেশ একটি মহাপরীক্ষায় নিমজ্জিত। একদিকে করোনা নামক মরণব্যধিতে আক্রান্তদের বোবা কান্না অপরদিকে স্বজনহারাদের আর্তনাদ। এই মহামারী ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গত বছর প্রথমদিকে কড়া লকডাউন ছিল। প্রায় ৩ মাসেরও অধিক সময় ঘরবন্দী সকল স্তরের মানুষ।

এই করুণ পরিস্থিতিতে যিনি দিনের আলোতে, রাতের আঁধারে ছুটে চলেছেন মানুষের পাশে তিনি হলেন জামিল ভাই। পুরো নাম মো. আব্দুর রহমান জামিল। সিলেটের একজন পরিচিত মুখ। মিডিয়াবান্ধব হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি আছে সর্বমহলে।

বাংলাদেশের স্বপ্ননায়ক, স্বাধীনতার পুরোদা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছেন।

তিনি সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনার দায়িত্বে দ্বিতীয়বারের মতো বর্তমান কমিটিতে নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।

এছাড়াও বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিটের সেক্রেটারি, সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। সেই মহামারীর প্রাক্কালে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় দলের পাশাপাশি রেড ক্রিসেন্টের মাধ্যমে অসহায়-ছিন্নমূল মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

কিন্তু বরাদ্দ শেষ হলেও থেমে থাকেন নি তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে, স্বজন-বন্ধুদের মাধ্যমে চালিয়ে গেছেন তার কর্মতৎপরতা।

সবচেয়ে ভালোদিকটা আমার চেয়ে সিলেটের অনেক পুরনো গণমাধ্যম কর্মীরাই ভালো জানেন।

 

আপনজন, কাছের জনদের লাইনে দাঁড়িয়ে

এসব খাদ্যসামগ্রী গ্রহণের পক্ষে তিনি কখনো ছিলেন না, আজো নেই। তিনি স্ব-উদ্যোগে তাদের বাসা-বাড়িতে রাতের আঁধারে চুপিচুপি গমণ করে দিয়ে আসেন। কেউই ঠের পায় না।
আনন্দ তো সেখানেই যখন নিজেদের মানুষদের নিকট গিয়ে দিয়ে আসা যায়।

রেড ক্রিসেন্টের পরিচালনার ক্ষেত্রে অত্যন্ত দক্ষতার পরিচয় দিয়ে আসছেন তিনি। সিলেটের সকল উপজেলায় ত্রাণ সামগ্রীসহ সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে টিম ওয়ার্ক কাজ করা। করোনাকালের রমজান মাসে রান্না করা ইফতার বিতরণসহ নানবিদ কর্মকান্ড হয়েছে।

এভাবেই দ্বিতীয় ঢেউ চলে। পরে করোনার উর্ধ্বমূখী সংক্রমণকালেও নিজের ও পরিবারের কথা চিন্তা না করে নিরবে রাতের আঁধারে তিনি মধ্যবিত্ত বিভিন্ন পেশার মানুষজনের পাশে দাঁড়াতে দেখা গেছে।

তিনি ফটোসেশনে বিশ্বাসী নয়। যে ফটোসেশনের ভয়ে অনেক লোক নিজের ক্ষুদার কথা ভুলে গিয়ে দুরে থাকে সেই ফটোসেশন তথা লোকদেখানোতে কোনো স্বার্থকতা নেই বলে তিনি মনে করেন।






© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বস্বত্ব SylhetLive24.Com কর্তৃক সংরক্ষিত ।

Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo